বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
রূপসায় ডিবি পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ যুবক আটক খুলনায় ই-গভর্ন্যান্স ও উদ্ভাবন উদ্যোগ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত  সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে অপরাজিতা নেটওয়ার্কের অভিজ্ঞতা বিনিময় সভা স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে  ডুমু‌রিয়ার সা‌বেক ক‌লেজ শিক্ষক নারায়ন চন্দ্র মন্ড‌লের মৃত্যু ডুমুরিয়ায় ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন ডুমুরিয়ার অপরাজিতা নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন প্রকল্পের সভা অনুষ্ঠিত রপসায় ডিবি পুলিশের অভিযানে গাঁজাসহ গ্রেফতার-২ বটিয়াঘাটায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ২১ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১  ডুমুরিয়ার চুকনগরে দুটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দুঃসাহসিক চুরি  খুলনায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

অর্থনৈতিক ও সামাজিক ভিত্তি মজবুত না হলে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন নিশ্চিত হবে না

Reporter Name
  • আপডেট টাইম শনিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ২২৭ জন সংবাদটি পড়েছেন
অপরাজিতদের সাথে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সংলাপ অনুষ্ঠানে উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি বলেছেন, অর্থনৈতিক ও সামাজিক ভিত্তি মজবুত না হলে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন নিশ্চিত হবে না। এ জন্য সংগ্রামের বিকল্প নেই। নারীরা কোন ক্ষেত্রেই পিছিয়ে নেই। তাদের সংগ্রাম করেই রাজনীতিতে যোগ্য আসন ছিনিয়ে নিতে হবে। সততা এবং কর্মনিষ্ঠা থাকলে নারীরা শিগগিরই রাজনীতিতে তাদের যথাযোগ্য অসন পাবেন এই বিশ্বাস রেখে সামনে এগিয়ে চলতে হবে।
 ১৬ সেপ্টেম্বর বিভাগীয় পর্যায়ের অপরাজিতদের সাথে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সংলাপ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।
খুলনা প্রেস ক্লাবের ব্যাংকোয়েট হলে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন খুলনা বিভাগীয় অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সভাপতি ও বাগেরহাট উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রিজিয়া পারভীন।
সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কামরুজ্জামান টুকু, বাগেরহাট জেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব শেখ মোজাফ্ফর রহমান আলম, খুলনা জেলা বিএনপি নেতা আব্দুর রশীদ, জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শফিকুল ইসলাম মধু, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার উদ্দিন দুলু। সিনিয়র অপরাজিতাদের মধ্যে বক্তৃতা করেন বাগেরহাট জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সভাপতি এ্যাড. শরীফা হেমায়েত, খুলনা বিভাগীয় অপরাজিতা নেটওয়ার্কের এ্যাড. তাছলিমা খাতুন ছন্দা, এ্যাড. সেলিনা আক্তার পিয়া। উপস্থিত ছিলেন খুলনা জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সভাপতি ফারজানা ফেরদৌস নিশা।
মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন রামপাল উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হোসনে আরা মিলি,  মোংলা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন নাহার হাই, বটিয়াঘাটা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চঞ্চলা মন্ডল, ইউপি চেয়ারম্যান নাজিনা বেগম নারজিনা, মোসাঃ সুলতানা পারভীন,  তানিয়া খানম, হোসনেয়ারা চম্পা, এ্যাড. লুনা সিদ্দিকী, অর্পা মল্লিক, রোকসানা পারভীন, সাহিদা ইসলাম নয়ন, আফরোজা খানম, মোছাঃ নাসিমা কবীর, মাধুরী সরকার, গায়ত্রী বিশ্বাস, শাহনাজ ইসলাম, রহিমা খাতুন, এ্যাড. পপি ব্যাণার্জী, রাবেয়া সুলতানা প্রমূখ। খুলনা জেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সম্পাদক আকলিমা খাতুন তুলির সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন রূপান্তর পরিচালিত অপরাজিতা প্রকল্পের সমন্বয়কারী সুবল ঘোষ টুটুল। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বটিয়াঘাটা উপজেলা অপরাজিতা নেটওয়ার্কের সভাপতি বুলু রায় গাঙ্গুলী। মুক্ত আলোচনার সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আনোয়ারুল কাদির।
সভায়, বক্তারা বলেন, নারীরা দেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক। ভোটারদেরও অর্ধেকই নারী। সে হিসেবে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে উপজেলা পরিষদ, এমনিক জাতীয় সংসদেও, নারী জনপ্রতিনিধিদের সংখ্যা শতকরা পঞ্চাশ ভাগ করার কথা ছিল। কিন্তু বাস্তবে তা নেই। নারী উন্নয়ন নীতি ২০১১ তে রাজনৈতিক দলের অভ্যন্তরে পর্যায়ক্রমে ৩৩ শতাংশ নারী প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা ও নির্বাচনে অধিকহারে নারী প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোকে অনুপ্রাণিত করা বিষয়টি রয়েছে। কিন্তু এক যুগ পার হলেও নীতিমালার বাস্তবায়ন হয়নি। গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ (আরপিও)-এ একটি ধারা যুক্ত করা হয় ২০০৯-এর সংশোধনীতে। এই ধারায় বলা হয়েছিল, ২০২০ সালের মধ্যে রাজনৈতিক দলের সকল পর্যায়ের মূল কমিটিতে ৩৩ শতাংশ নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। যদিও তা সকল রাজনৈতিক দল নিশ্চিত করতে না পারায়, এখন ২০৩০ সালকে টার্গেট করে নির্বাচন কমিশন আরপিও’র একটি সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ হয়েছে। সুতরাং আরপিও বাস্তবায়নের জন্যও দলগুলোর একটা বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
বক্তারা আসন্ন সংসদ নির্বাচনে ৩৩% সংসদীয় আসনে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া ও রাজনৈতিক দলের সকল কমিটিতে ৩৩% নারীকে যুক্ত করার সাথে সাথে গুরুত্বপূর্ণ পদে বিশেষ করে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও কোষাধ্যক্ষ মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে নারীকে অন্তর্ভূক্ত করার দাবি জানান। এক্ষেত্রে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে, সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন আইন ও জাতীয় নীতিতে, আরো সুস্পষ্ট ও জোরালোভাবে যেন দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়, সে দাবিও জানানো হয়।
উল্লেখ্য, সুইজারল্যান্ডের সহায়তায় ও হেলভেটাস সুইস ইন্টারকোঅপারেশন তত্ত্বাবধানে রূপান্তর খুলনা ও বাগেরহাট জেলার ১১টি উপজেলার ৮৪টি ইউনিয়নে ‘অপরাজিতা: নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্পটি স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত নারী প্রতিনিধি তথা নির্বাচনে আগ্রহী নারী নেত্রীদের দক্ষতা উন্নয়ন, বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ এবং স্থানীয় ও জাতীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সাথে সংলাপ সহ নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করছে। অপরাজিতারা নারীদের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ও এসডিজি অর্জনে কাজ করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

বর্তমান ভিজিটর

Total Visitors
2746533
180
Visitors Today
52
Live visitors
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu