মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
খুলনা জেলা এসডিজি ফোরামের ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত ফকিরহাটে সড়ক দূর্ঘটনায় ট্রাক চালক নিহত, আহত-২ বর্তমান সরকার সর্বদা গরীব অসহায় এবং দুঃস্থদের সাহায্য করে আসছেন-রূপসায় জুম কনফারেন্সে এমপি সালাম মূর্শেদী “প্রিয়া ইসলাম ফাতিহা” হতে পারে সবার জীবনে অনুকরনীয় ডুমুরিয়া কলেজ মাঠে মানুষ বিক্রির হাট !           রূপসায় সুন্দরবনের জলদস্যু রাজু গ্রেফতার খুলনা জেলা ডিবি পুলিশের অভিযানে ২৫০ গ্রাম গাঁজাসহ আটক-১ পাবনার আটঘরিয়ায় গৃহিনীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ! হত্যা নাকি আত্মহত্যা ? দিঘলিয়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুগ্রুপের সংঘর্ষ, আটক-৭ ফকিরহাটে কলেজ ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় আটক-১

অবশেষে খুলনার রূপসায় ওএমএস কার্ডধারীদের যাচাই বাছাই শুরু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম বুধবার, ১০ জুন, ২০২০
  • ৩৯৫ জন সংবাদটি পড়েছেন

রূপসা উপজেলার ৫ ইউনিয়নের ২১জন ওএমএস ডিলারদের অনিয়মের বিরুদ্ধে  তদন্তের  প্রাথমিক পর্যায়ে উপজেলার শ্রীফলতলা ইউনিয়নের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচী (ওএমএস) চালের কার্ড ধারীদের যাচাই বাছাই শুরু হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত ট্যাগ অফিসার উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আবু বকর মোল্লা, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এসহাক সরদার, এমপির প্রতিনিধি ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম হাবীব, ডিলার এবিএম কামরূজ্জামান, ইউপি সদস্য সরদার কামরুল ইসলাম,জাহিদ হোসেন বাদশাসহ অনেকে।

জানা যায় উপজেলায় মোট ২১টি ওএমএস ডিলার রয়েছে। তাদের ২/১জন ছাড়া বাকী ডিলারদের বিরুদ্ধে কার্ডধারীদের চাল না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। অনেক কার্ডধারীরা জানেই না চাল কবে দেওয়া হয়। উপজেলা ঘুরে দেখা গেছে, অসহায় বা নিম্ন বিত্ত মানুষদেরকে কার্ড দেবার কথা থাকলেও নাম মাত্র দিয়ে জনপ্রতিনিধি বা নেতাদের আত্বীয়-স্বজন এবং স্বচ্ছল পরিবারের নামে এমনকি সরকারী চাকুরীজিবীর নামেও রয়েছে চালের কার্ড। ইতিমধ্যে গোয়েন্দা সংস্থার অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন চাল আত্মসাতের প্রমান পেয়ে শ্রীফলতলা ইউনিয়নের ডিলার সরদার মিজানুর রহমানের ডিলারশীপ বাতিল করেছে। এছাড়া আরো অনেক ডিলারের বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ প্রশাসনের নজরে এসেছে।

খুলনা-৪ আসনের এমপি আব্দুস সালাম মূশের্দীর নিদের্শে সকল ইউনিয়নে তালিকা বাছাই শুরু হয়েছে। তদন্ত শুরুতেই অনেক ডিলার তাদের অপরাধ ধামাচাপা দেওয়ার জন্য দলের বিভিন্ন নেতাদের কাছে দৌড় ঝাপ শুরু করেছে। সরকার দলীয় নেতারাই এ ডিলারশীপ পেয়ে সীমাহীন অনিয়ম দূর্নীতির মাধ্যমে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই সকল অনিয়ম দুর করে প্রকৃত কার্ডধারীদের মাঝে বিতরণ করার আহবান জানিয়েছে বঞ্চিত কাডাধারীরা।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন আকতার জানান, অপরাধী যেই হোক তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। ১০টাকার কার্ডের চাল নিয়ে অনিয়মের তদন্ত চলছে। অপরাধ প্রমান হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা মাঠ পর্যায়ে নিবিড় ভাবে পর্যবেক্ষনে রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu