বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
খুলনা জেলা এসডিজি ফোরামের ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত ফকিরহাটে সড়ক দূর্ঘটনায় ট্রাক চালক নিহত, আহত-২ বর্তমান সরকার সর্বদা গরীব অসহায় এবং দুঃস্থদের সাহায্য করে আসছেন-রূপসায় জুম কনফারেন্সে এমপি সালাম মূর্শেদী “প্রিয়া ইসলাম ফাতিহা” হতে পারে সবার জীবনে অনুকরনীয় ডুমুরিয়া কলেজ মাঠে মানুষ বিক্রির হাট !           রূপসায় সুন্দরবনের জলদস্যু রাজু গ্রেফতার খুলনা জেলা ডিবি পুলিশের অভিযানে ২৫০ গ্রাম গাঁজাসহ আটক-১ পাবনার আটঘরিয়ায় গৃহিনীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ! হত্যা নাকি আত্মহত্যা ? দিঘলিয়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুগ্রুপের সংঘর্ষ, আটক-৭ ফকিরহাটে কলেজ ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় আটক-১

যশোর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি সফলতার গল্প

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ২৬ জুন, ২০২০
  • ২৪৯ জন সংবাদটি পড়েছেন

ফেসবুকের মাধ্যমে গৃহবধু রিমা খাতুন(২৪) এর পরিচয় হয় মালয়েশিয়া প্রবাসী সোহেল রানার সাথে। সোহেল রানা বগুড়া জেলার ধনুট থানাধীন ধামাচামা গ্রামের শাহ আলমের পুত্র। সোহেল দীর্ঘ দিন ধরে মালয়েশিয়া থাকে। রিমা খাতুন যশোর মনিরামপুর থানাধীন মহাদেবপুরের মৃত অমেদ আলী গাজীর প্রবাসী ছেলে মোঃ হাফিজুর রহমান গাজীর স্ত্রী। এক মেয়ে ও এক ছেলে সন্তান নিয়ে ভালোই কাটছিলো রিমা খাতুনের সংসার। ফেসবুকের মাধ্যমে প্রতারক সোহেল রিমাকে প্রেমের টোপ দেয়। সেই টোপ গিলে রিমাকে অপহরনের শিকার হতে হয়। গত ১ জুন রিমা খাতুন নিখোঁজ হয়। নিখোঁজ রিমা খাতুনের স্বামীর পরিবার মনিরামপুর থানায় গত ১০ জুন একটি  জিডি করেন, জিডি নং-৩৬৬।

এক পর্যায় রিমা খাতুনের পরিবার জানতে পারে রিমা খাতুন কে প্রবাসী সোহেল রানার নির্দেশে তার আপন ছোট ভাই জুয়েল আহম্মেদ ও তার কয়েক জন সহযোগী মিলে মাইক্রোবাস যোগে এসে যশোর মনিরামপুর থানাধীন মহাদেবপুরের অবস্থানরত রিমা খাতুন কে নগদ ৩৬,০০,০০০/- (ছত্রিশ লক্ষ) টাকা ও ১২ ভরি স্বর্ণালংকারসহ অপহরণ করে নিয়ে অজ্ঞাত স্থানে আটক করে রেখেছে।

পরবর্তীতে নিখোঁজের পরিবার মনিরামপুর থানায় গত ১৬ জুন নারী ও শিশুনির্যাতন দমন আইন ২০০০ ( সংশোধনী/২০০৩) এর ৭/৩০ তৎসহ ৪০৬/৪২০/৪১৭ পেনাল কোড রুজু করে, মামলা করে। যার নং-১১। মামলাটি চাঞ্চল্যকর হওয়ায় যশোর জেলার পুলিশ সুপার  মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন পিপিএম মামলাটির তদন্তভার ডিবি কে ন্যাস্ত করেন। মামলাটির তদন্তভার পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ) সোমেন দাশ গ্রহণ করেন এবং তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার করে আসামী এবং ভিকটিমের অবস্থান সনাক্ত করেন।

যশোর জেলার পুলিশ সুপার  মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন পিপিএম এর নির্দেশক্রমে গত ২৫ জুন ভোর ০৫.৩০ ঘটিকার সময়  মারুফ আহম্মদ অফিসার ইনচার্জ জেলা গোয়েন্দা শাখা যশোর এর সার্বিক তত্বাবধায়নে পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ) সোমেন দাশ এর নেতৃত্বে ডিবি’র একটি চৌকস টিম বগুড়া জেলার ধনুট থানাধীন ধামাচামা নামক স্থানে অভিযান পরিচালনা করে অপহৃত ভিকটিম রিমা খাতুন কে উদ্ধার ও আসামী ১।জুয়েল আহম্মেদ, ২।আলমগীর হোসেন, ৩।মোঃ মামুন-উর-রশিদ কে গ্রেফতার করে এবং নগদ অর্থ ১৬,০০,০০০/- (ষোল লক্ষ) টাকা ও ২ ভরি স্বর্ণালংকার উদ্ধার করে।

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, ফেসবুকে পরিচয় হয়ে ভিকটিম রিমা খাতুনের ছবি নিয়ে বিকৃত করে তার প্রবাসী স্বামী হাফিজুর ও তার পরিবারের লোকজনের নিকট প্রকাশের ভয়ভীতি দেখিয়ে ১লা মে ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।

এরপর সোহেলের ভাই জুয়েল এবং অন্যান্য সহযোগীদের মাধ্যমে রিমা খাতুনকে ৩৬ লক্ষ টাকা ও স্বর্ণালংকার সহ অপহরণ করে নিয়ে অজ্ঞাতস্থানে আটক রাখা হয়।

ভিকটিম এবং আসামীদ্বয় বিজ্ঞআদালতে জবানবন্দি প্রদান করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu