মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০২:৪৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
শ্যামনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সবুজের বিরুদ্ধে পদ বানিজ্যের অভিযোগ সাতক্ষীরায় মাদক বিক্রিতে বাধা দেওয়ায় কিশোর কে কুপিয়ে জখম খুলনায় দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অপরাধে দল থেকে সাময়িক বহিস্কার এফ এম ওহিদুজ্জামান খুলনার দিঘলিয়ায় প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের কোপে যুবক নিহত গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বিএনপি নেতা গ্রেফতার সাতক্ষীরা করোনা হাসপাতালে আবারো চিকিৎসা সরঞ্জাম দিলেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান খুলনার কৃতি সন্তান ড. এনামুল হক লাবুর অকাল মৃত্যু : বিভিন্ন সংগঠনের শোক সাতক্ষীরা উপকূলে ফ্রেন্ডশিপের সাড়ে চার লক্ষ ম‍্যানগ্রোভ চারা রোপন কর্মসূচি শ‍্যামনগরের শংকরকাটি সুন্নিয়া দাখিল মাদরাসায় কর্মচারী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে আদালতে মামলা। সাতক্ষীরায় জমি দখলে ব্যর্থ হয়ে এক সাংবাদিক ও তার পিতাকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা

খুলনায় নদীর পাড়ে লাগানো হচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম শনিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২০
  • ২২৯ জন সংবাদটি পড়েছেন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে খুলনায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির আওতায় নদীর পাড় গুলোতো বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হচ্ছে৷

শনিবার (২৯ আগস্ট) সকালে ঝপঝপিয়া ও ভদ্রার নদীর পাশে বৃক্ষরোপন করেন খুলনা পানি উন্নয়ন বোর্ড ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী পলাশ কুমার ব্যানার্জি। এর আগে গত বুধবার (২৬ আগস্ট) আনুষ্ঠানিকভাবে খুলনা পওর বিভাগ- ২ এর বৃক্ষরোপন এর উদ্বোধন করেন পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব এ এইচ এম আনোয়ার পাশা ও খুলনা জেলা প্রশাসক ও মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশে যাতে বনায়ন ও সবুজ বেষ্টনীর সৃষ্টি হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখেই ১ কোটি গাছের চারা রোপণের কার্যক্রম হাতে নেয় সরকার। এরই অংশ হিসাবে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতায় ১০ লক্ষ বৃক্ষরোপণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এ লক্ষ্যে খুলনা পওর বিভাগ-২, (বাপাউবো) খুলনার অধীনে ঝপঝপিয়া ও ভদ্রা নদীর পাশে প্রায় ২ হাজার বৃক্ষের চারা রোপন করা হবে। দেশের ভূ-প্রকৃতির অবস্থা পরিবেশ এর বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী বৃক্ষরোপণের জন্য বন বিভাগ ও মন্ত্রণালয় কর্তৃক গাছের তালিকা হতে বৃক্ষের প্রজাতি নির্ধারণ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে পাখিদের আহার ও বাসস্থানের উপযোগী, ছায়াদানকারী ক্যানোপি সৃষ্টি, লবণাক্ত পানির সহিষ্ণুতা এসকল বিষয়সমূহ লক্ষ রাখা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে একটি চারা থেকে আরেকটি চারার দূরত্ব গাছের ক্যানোপি (পাতার বিস্তার) অনুযায়ী ৬.০০ মিটার বা ২০ ফুট নির্ধারণ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, এই বনায়নের মাধ্যমে প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় কিছুটা সহায়ক হবে। তবে আঠারোবেঁকি নদীর বাকী অংশে নদীর উভয় পাশের খাস জমিতে আরো প্রায় এক লক্ষ গাছ লাগানো সম্ভব। এসব গাছ লাগানোর মাধ্যমে যেমন ভূমিদস্যুদের দখলমুক্ত থাকবে অন্যদিকে প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা ও দেশের জনগণের খাদ্য পুষ্টি চাহিদা মেটাতে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

বটিয়াঘাটা উপজেলার ভদ্রা নদী পাড়ের বাসিন্দা আইয়ুব আলী জানান, বৃক্ষ আমাদের পরম বন্ধ। নদীর পাড়ে গাছপালা কম থাকায় নদীর সেই সুন্দর্য চোখে পড়ে না। আমি সরকার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ধন্যবাদ জানায় কারন; তাদের এই বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির ফলে নদী ফিরে পাবে তার আসল রূপ। খুলনা পানি উন্নয়ন বোর্ড ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী পলাশ কুমার ব্যানার্জি জানান, নদী ভাঙ্গন রোধে বৃক্ষের কোন বিকল্প নেই৷ ইতি মধ্যে আমরা নদীর দু’পাড়ে বিভিন্ন ফলজ, বনজ ও ঔষুধি গাছ রোপন করছি৷ আমাদের এমন কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu