বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
বর্তমান সরকার জাতি,ধর্ম,বর্ণ নির্বিশেষে উন্নয়নের ধারা অব্যহত রেখেছে- রূপসায় এ্যাড. সুজিত ডিজিটাল ভূমি ব্যবস্থাপনায় বিশেষ অবদানের জন্য পুরস্কিত হলেন পাইকগাছার ইউএনও পাইকগাছায় কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে দু’ দিনব্যাপী প্রশিক্ষন অনুষ্ঠিত পাইকগাছায় জাতীয় ভোটার দিবস পালিত রূপসায় জাতীয় ভোটার দিবস পালিত রূপসায় সোনালী ব্যাংক কাজদিয়া শাখার গ্রাহক সেবা মাসের উদ্ধোধন রূপসায় জাতীয় বীমা দিবস পালিত  নাইতং পাহাড়ে হোটেল ও বিনোদন কেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে শাহবাগে সমাবেশ ডুমুরিয়ার শোভনায় উন্নয়নের অগ্রযাত্রা শীর্ষক  মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত পাইকগাছা থানা পুলিশের অভিযানে গাঁজা সহ মাদক বিক্রেতা আটক

খুলনার ডুমুরিয়ায় সমবায় সমিতির নামে চলছে চড়া সুদে অবৈধ  ব্যাংকিং কারবার। কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৯৯ জন সংবাদটি পড়েছেন
লতিফ মোড়ল,ডুমুরিয়াঃ খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে সমবায় সমিতি। এসব সমিতির সাইনবোর্ডের আড়ালে সদস্য-অসদস্যর মাঝে চলছে ব্যাংকিং কার্যক্রম ও চড়া সুদের কারবার। এতে সমিতির সাধারণ সদস্যরা নি:শেষ  হলেও চাকচিক্য হয়ে উঠছে সমিতির কর্ণধারদের বাসভবন । ফুলে ফেপে উঠছে তাদের সহায় সম্পদ।
সমিতির সদস্য ও আমানতকারীদের পাওনা টাকা না দেয়ায় এবং হয়রানীর কারণে সমিতির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে চলছে আদালতে মামলা। এদিকে সমবায় আইনী তোয়াক্কা না করে ইচ্ছামত কার্যক্রম অব্যাহতভাবে পরিচালনা করার অভিযোগের সংবাদ মিডিয়ায় প্রকাশিত হওয়ার প্রেক্ষিতে ১৫টি সমবায় সমিতিকে শোকজ করেছেন উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা এফএম সেলিম আকতার।
খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় বর্তমানে ৩১০টি নিবন্ধিত সমবায় সমিতি রয়েছে। যার অধিকাংশ সমিতি আইনের তোয়াক্কা না করে সরাসরি ব্যাংকিং ও ঋণদানের সাথে যুক্ত রয়েছে। গ্রাম্য সুদে মহাজন খেতাব ঘোচাতে ও আর্থিক লাভবান হওয়ার জন্য গুটি কয়েকব্যক্তি নিবন্ধন নিয়ে সুদে ব্যবসায় নেমে সাধারণ মানুষের রক্ত চুষে খাচ্ছে। এছাড়া অনিয়ম স্বেচ্ছাচারিতা ও সমবায় আইন লঙ্ঘন করার দায়ে ৪৮টি সমবায় সমিতির নিবন্ধন বাতিল করেছে সংশ্লিষ্ট দফতর।
এদিকে সমিতির বাজার খ্যাত রঘুনাথপুর ইউনিয়নের থুকড়া বাজার,রুপ রামপুর গ্রামসহ পার্শ্ববর্তি এলাকায় সমবায় সমিতির নামে ব্যাঙ্গের ছাতার মত গজিয়ে উঠেছে প্রায় দেড় ডজন অবৈধ সুদে কারবারি প্রতিষ্ঠান। চারদিকে চোখে পড়ে বিভিন্ন নামে সমবায় সমিতির সাইনবোর্ড। প্রাথমিক পর্যায়ে সমবায় সমিতিগুলো যৌবন আর চাকচিক্য ভরপুর থাকলেও এখন তা চলে গেছে সভাপতি সম্পাদকসহ সমিতির কতিপয় কর্তা ব্যক্তির পকেটে । থুকড়া বাজারের
রূপালী বহুমুখী সমবায় সমিতি লিঃ এর সভাপতি আব্দুল হামিদ গাজী সম্প্রতি মৃত্যুবরণ করেছেন। এতে পাওনা টাকা না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন সদস্য ও আমানতকারীরা। সমিতিতে আমানতকারী ও সদস্যদের পাওনা প্রায় ৪ কোটি টাকা। কর্মকর্তাদের কাছে ধর্ণা দিয়েও তারা টাকা ফেরত পাচ্ছে না। পাওনা টাকা না পেয়ে ১৫জন আমানতকারী ও সদস্য ৫৫ লক্ষ ৬০ হাজার ৪’শ ৯৪ ফেরত পাওয়ার জন্য আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।
সমিতির সদস্য শফিকুল ইসলাম (সদস্য নং ২০) এর পাওনা রয়েছে ৩লক্ষ ৭০ হাজার টাকা। তার স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য টাকা ফেরত চেয়েও পাননি। থুকড়া গ্রামের হাসিনা বেগম ও রিজিয়া বেগমের ৮ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা থানা পুলিশের মাধ্যমে ২ কিস্তিতে ফেরত দেয়ার অঙ্গীকারে সভাপতি সেক্রেটারী একটি চেক প্রদান করেন। কিন্তু সময়মত টাকা ফেরত না দেয়ায় তারা আদালতে মামলা করেছেন।
উপজেলার রূপরামপুর গ্রামের রাধা কান্ত বিশ্বাস জানান; রূপালী  বহুমুখী সমবায় সমিতিতে জমাকৃত টাকা পূজার সময় উঠাতে গেলে রাত ১০টা পর্যন্ত বসে থেকে ফিরে আসতে হয়েছে। সমিতির সেক্রেটারী নিহার বিশ্বাস বলেন; টাকা সব মাঠে রয়েছে। মাঠ থেকে আদায় করে সদস্যদের দিতে হচ্ছে।
ঋণের টাকা দেয়ার সময়ে কৌশলে নেওয়া হচ্ছে বাণিজ্যিক ব্যাংকের সহি করা অলিখিত চেকের পাতা ও নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প। সময় অনুযায়ী টাকা দিতে না পারলে সহি করা চেকের পাতা ও নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প দিয়ে ঋনের কয়েক গুন বেশি টাকা লিখে ঋণ গ্রহীতাদের হয়রানী করা হচ্ছে। শতকরা ২৪ থেকে ৩৬% পর্যন্ত এমনকি খেলাপীদের কাছ থেকে ইচ্ছামত সুদ আদায়সহ দৈনিক, সাপ্তাহিক ও  মাসিক কিস্তির মাধ্যমে স্থানীয় সহায় সম্বলহীন সহজ সরল মানুষের কাছ থেকে সুদাসলসহ আদায় করা হচ্ছে ।
অন্যদিকে ডুমুরিয়ার  সমবায় দফতর থেকে নিবন্ধনকৃত ৩১০টি  সমিতির ক্ষুদ্র ঋণ পরিচালনার ক্ষেত্রে ২টি প্রতিষ্ঠান ছাড়া কোন প্রতিষ্ঠানের এমইরএ’র সনদ নেই। অথচ মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটির নির্দেশনা লঙ্ঘন করে ক্ষদ্র ঋণের নামে চড়া সুদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে সমবায় সমিতিগুলো।  এ ছাড়া নিবন্ধনবিহীন অসংখ্যা সংগঠন ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে বলে জানা যায়।
মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বেআইনী ক্ষুদ্রঋণ পরিচালনা  করা বিষয়ক সতর্কীকরণ ৭নং বিজ্ঞপ্তির ২ নং ক্রমিকে বলা হয়েছে, মাইক্রোক্রেডিট রেগুলেটরী অথরিটি আইন ২০০৬ এর ধারা ১৫(১) অনুযায়ী এমআরএ’র সনদ ব্যতিত কোন বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ক্ষুদ্রঋণ পরিচালনা করার সুযোগ নেই এবং একই আইনের ধারা ৩৫(১)(ক) ও ৩৫(১)(খ) অনুযায়ী সনদবিহীন ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে বেশ কিছু সমিতি অধিক মুনাফা ও অসদস্যের সাথে ঋণকার্যক্রম পরিচালনা করায় ডুমুরিয়া উপজেলা সমবায় দপ্তর শোকজ নোটিশ প্রদান করেছে। ১৫ নভেম্বর সমবায় দপ্তর জনতা আদর্শ গ্রাম উন্নয়ন বহুমুখী, থুকড়া জনতা সঞ্চয় ও ঋণদান, মোহনা আদর্শ যুব উন্নয়ন, রাজ সঞ্চয় ও ঋণদান, অগ্রনী বহুমুখী সমবায় সমিতি, চমক মানবকল্যান, মাছরাঙ্গা সঞ্চয় ও নবপল্লী জাগরণী, সোনালী স্বপ্ন গ্রাম উন্নয়ন, রূপায়ন সঞ্চয়, উদ্যম সঞ্চয়, দ্যুতি বহুমুখী, দক্ষিণবঙ্গ সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন, রূপালী বহুমুখী, পল্লী গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতিকে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা ঋণ কার্যক্রম বিষয়ে ব্যাখ্যা চেয়ে নোটিশ প্রদান করেছে। নোটিশে বলা হয়েছে আইন লঙ্ঘন করে পরিচালনা করার অভিযোগে আগামি ২৫ নভেম্বরের মধ্যে জবাব প্রদানের জন্য বলা হয়েছে।
উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা এফএম সেলিম আকতার বলেন; কিছু কিছু সমিতি সমবায় নীতিমালা লঙ্ঘন করে ব্যাংকিং ও সুদ কারবারীসহ বিধিবর্হিভুত কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। আমি এসব সমিতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছি। সমবায় সমিতি আইন ২০০১ (সংশোধন) ২০০২ ও ২০০৩ এর ২৩(খ)(১) ধারা, ২৬(১)(ক) ধারা লঙ্ঘনের দায়ে ১৫টি সমিতির নামে শোকজ প্রদান করা হয়েছে। সম্প্রতি বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলে এ ধরনের অভিযোগ প্রকাশ করেছে। সন্তোষজনক জবাব না পেলে সমবায় সমিতি আইন ও বিধিমালা লঙ্ঘনের দায়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ দিকে বছররের পর বছর সমবায় সমিতির নামে চড়া সুদে অবৈধ ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালিত হলেও প্রশাসন যেন নির্বাকার অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu