বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
খুলনা জেলা এসডিজি ফোরামের ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত ফকিরহাটে সড়ক দূর্ঘটনায় ট্রাক চালক নিহত, আহত-২ বর্তমান সরকার সর্বদা গরীব অসহায় এবং দুঃস্থদের সাহায্য করে আসছেন-রূপসায় জুম কনফারেন্সে এমপি সালাম মূর্শেদী “প্রিয়া ইসলাম ফাতিহা” হতে পারে সবার জীবনে অনুকরনীয় ডুমুরিয়া কলেজ মাঠে মানুষ বিক্রির হাট !           রূপসায় সুন্দরবনের জলদস্যু রাজু গ্রেফতার খুলনা জেলা ডিবি পুলিশের অভিযানে ২৫০ গ্রাম গাঁজাসহ আটক-১ পাবনার আটঘরিয়ায় গৃহিনীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ! হত্যা নাকি আত্মহত্যা ? দিঘলিয়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুগ্রুপের সংঘর্ষ, আটক-৭ ফকিরহাটে কলেজ ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় আটক-১

ক্যাপসিকাম চাষে জীবিকার পথ পেয়েছেন রূপসার নাজিম উদ্দিন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম বুধবার, ১০ মার্চ, ২০২১
  • ৯০ জন সংবাদটি পড়েছেন

মোঃআবদুর রহমান


সরেজমিন ক্ষেতে গিয়ে দেখা যায়, তার প্রতিটি গাছে থোকায় থোকায় ঝুলছে সবুজ, বেগুনি, হলুদ আর লাল রঙের ক্যাপসিকাম । ক্ষেত জুড়ে দৃষ্টিনন্দন এই মিষ্টিমরিচ দেখে খুশিতে ভরে উঠছে কৃষকের মন। অধিক ফলনের আশায় ক্যাপসিকাম ক্ষেতে পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষক নাজিম উদ্দিন ।

এভাবে তার হাতের ছোঁয়া আর যত্ন পরিচর্যায় ক্যাপসিকামের চারা গুলো হয়ে উঠেছে হৃষ্টপুষ্ট। চারা রোপণের দু’মাস পর থেকেই গাছে ফল ধরা শুরু হয়। এই ২০ শতক জমিতে ক্যাপসিকাম চাষে বীজ ক্রয়, জমি প্রস্তুত, সার, বালাই নাশক ও মালর্চিং পেপার ক্রয় এবং শেড তৈরিসহ সব মিলিয়ে তার প্রায় ২২-২৪ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। যদিও নিজেরা কাজ করায় এরমধ্যে শ্রমিকের খরচ লাগেনি। চারা রোপণের দু’মাস পর থেকে তিনি ক্যাপসিকাম বিক্রি শুরু করেছেন। এ পর্যন্ত ১০০ কেজি ক্যাপসিকাম পাইকারি বাজারে ২০০ টাকা কেজি হিসেবে ২০হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন । এখন ক্ষেতে যে পরিমাণ ফসল আছে তাতে আরো প্রায়তিন থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকার ক্যাপসিকাম বিক্রি হবে বলে আশা করছেন তিনি।

চাষি নাজিম উদ্দিন বলেন, বেকার ও অলস সময় অতিবাহিত না করে যাদের সামান্য জমি আছে ,তাতে ক্যাপসিকামসহ বিভিন্ন লাভজনক সবজি আবাদ করে পরিবারের চাহিদা মিটিয়ে বাড়তি সবজি বাজারে বিক্রি করে কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অর্থনৈতিক স্বাচ্ছন্দ আনা সম্ভব।

রূপসা উপজেলা কৃষি অফিসার  মোঃ ফরিদুজ্জামান বলেন,ক্যাপসিকাম উচ্চমূল্যের একটি নতুন ফসল। এ উপজেলায় এই প্রথমবার বাণিজ্যিক ভাবে এফসল চাষ করে সাফল্য লাভ করেছেন তরুণ ও বেকার যুবক নাজিম উদ্দিন । উপজেলা কৃষিঅফিস থেকে তাকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করা হচ্ছে। বাজারে দাম ও চাহিদা ভালো হওয়ায় এ উপজেলায় আগামীতে ক্যাপসিকামের চাষ আরো বাড়বে বলে আশা করেন তিনি।

ক্যাপসিকাম এদেশে সবার কাছে মিষ্টি মরিচ নামে পরিচিত । এ মরিচের আকার ও আকৃতি বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে । তবে সাধারণত এর ফল গোলাকার ও ত্বক পুরুহয়। ক্যাপসিকাম সবুজ , লাল, হলুদ, ও বেগুনি রঙের হয়ে থাকে । এ মরিচ ঝাল নয়, আবার চিনির মত মিষ্টিও নয় । মরিচের ঘ্রাণ আছে । তাই সালাদেরজন্য এ মরিচ খুবই  উপযুক্ত। ক্যাপসিকামে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন এ, বি, সি এবং ক্যালসিয়াম, লৌহ, ফসফরাস, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ ও জিংক রয়েছে । এর কাঁচা ফল সালাদ হিসেবেখুবই মুখরোচক ও পুষ্টিকর । তাছাড়া ক্যাপসিকাম রান্না করে সবজি হিসেবে খাওয়া যায়।

পুষ্টি উপাদান সরবরাহ করার পাশাপাশি ক্যাপসিকাম দেহের রোগ প্রতিরোধ ও নিরাময়ে বিশেষ ভূমিকা রাখে । ক্যাপসিকামে থাকা ভিটামিন এ, সি এবং বিটাক্যারোটিন চোখ ও ত্বককে ভালো রাখে। এছাড়া এটি লাইকোপেন সমৃদ্ধ হওয়ায় উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং হৃদরোগ দূরকরে। ক্যাপসিকাম দেহের বাড়তি ক্যালরি পূরণে সহায়তা করে । ফলে দেহে উচ্চ চর্বি জমেনা, একই সঙ্গে ওজনও বৃদ্ধি পায়না। এটি ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। ক্যাপসিকাম হজমে সাহায্য করে। এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতেও কার্যকর এবং রক্তে শর্করার মাত্রা স্থির রাখে।

প্রয়োজনীয় পুষ্টির যোগান দেয়া ছাড়াও লাভজনক ও অর্থকরী ফসলের মধ্যে ক্যাপসিকাম অন্যতম। আমাদের দেশে বিভিন্ন শপিং মল, ফাস্টফুড ও চাইনিজ রেস্টুরেন্টসহ অভিজাত হোটেলগুলোতে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এছাড়া  ক্যাপসিকাম বিদেশে রপ্তানির সম্ভাবনাও প্রচুর। এর চাষ করে অনেক ফসলের তুলনায় কম সময়ে বেশি লাভ করা যায়। তাই দেশের বেকার যুবকদের ক্যাপসিকাম চাষের ব্যাপক উদ্যোগ নেয়া একান্ত প্রয়োজন । এতে আর্থিক স্বচ্ছলতার পাশাপাশি কর্মসংস্থানের ব্যবস্থার মাধ্যমে বেকার সমস্যার সমাধান হবে এবং দেশের কৃষিনির্ভর অর্থনীতির চাকা আরো গতিশীল হবে। দেশ হবে সমৃদ্ধ।

উপ-সহকারী কৃষিকর্মকর্তা,উপজেলা কৃষি অফিস রূপসা, খুলনা।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu