শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৬:৩৯ অপরাহ্ন

৯৯৯ হট লাইনের অপব্যবহার! আদালতের নির্দেশনা উপেক্ষা করে জমি দখলের অপচেষ্টা; পুলিশের উপস্থিতিতে কলাগাছ তুলে ফেলার অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ৭১ জন সংবাদটি পড়েছেন
 ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধিঃডুমুরিয়ায়  জমি-জমা সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে আদালতের নির্দেশনা উপেক্ষা করে মামলার বাদীপক্ষের  রোপনকৃত কলাগাছ প্রতিপক্ষরা  তুলে  ফেলে ক্ষতি সাধন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
আর এক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে পুলিশের বিশেষ সেবার  ফোন ৯৯৯ হট নম্বরটি। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে খুলনার ডুমুরিয়া থানার কুলবাড়িয়া-বরাতিয়া গ্রামে।
মামলার নথিপত্র,থানা পুলিশ ও সরেজমিনে গিয়ে ভূক্তভোগীর সাথে আলাপকালে জানা যায়, ডুমুরিয়া থানার কুলবাড়িয়া-বরাতিয়া গ্রামের  আব্দুল কুদ্দুস শেখের স্ত্রী মোসা: খাদিজা বেগম একই এলাকার মো: রুহুল আমিন শেখ গংদের কাছ থেকে কবলা দলিল মূলে খরিদকৃত ভোগ দখলীয় কুলবাড়িয়া মৌজার খতিয়ান নম্বর এস এ ১৯৫৫, দাগ নম্বর ১২২১; আর এস খতিয়ান নম্বর ১৩২৮, বিআরএস দাগ নম্বর ২৮৭৬- এর ২৮ শতক জমির মধ্যে  হতে প্রায় ১৭ শতাংশ  জমি নিয়ে প্রতিপক্ষের সাথে আদালতে মামলা চলমান রয়েছে।
 মামলা চলমান থাকা অবস্থায় প্রতিপক্ষ একই এলাকার মো: হায়দার গোলদার, মো: শহিদুল ইসলাম গোলদার,  আয়ুব আলী গোলদার, মো: আতিয়ার গোলদার, আনিছুর গোলদার, আজিবর গোলদার ওই জমি জবর দখলে নেয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
 এ অভিযোগে খাদিজা বেগম বাদী হয়ে  খুলনার বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ,ডুমুরিয়া আদালতে একটি দেওয়ানী  মামলা দায়ের করেন যার নং ১২৩/১৯ইং।
ওই মামলায় বিজ্ঞ বিচারক গত ২রা মার্চ দো-তরফাসূত্রে শুনানীঅন্তে  বাদী খাদিজা বেগমের অনুকূলে দখল বজায় রাখতে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দেন।
এছাড়া বিবাদী মো: হায়দার গোলদার গংদের বিরুদ্ধে মোকদ্দমা নিষ্পত্তিকালতক নালিশী  ওই জমির মধ্যে বেআইনী অনুপ্রবেশসহ বাদীর ভোগ-দখলে বিঘ্ন সৃষ্টি থেকে বিবাদীগনের বিরুদ্ধে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আদেশ দ্বারা বারিত করেন।
অথচ আদালতের ওই আদেশকে অমান্য  গত ১৫ মার্চ বাদী খাদিজা বেগমের লোকজন জমিতে কাজ করার সময় বিবাদী হায়দার আলী গোলদার  গং পুলিশের বিশেষ সেবা ৯৯৯ এ ফোন করে হয়রানি মূলক ভাবে পুলিশের সহায়তায় কাজ বন্ধ করে দেয়।
এক পর্যায়ে শুক্রবার হায়দার আলী গং আবারও হট লাইন ৯৯৯ এ ফোন করে পুলিশ ডেকে এনে কুদ্দুস শেখদের রোপনকৃত কলাগাছ তুলে ফেলে ক্ষতি সাধন করে।
এ প্রসঙ্গে আব্দুল কুদ্দস শেখ জানান, তিনি তার লোকজন নিয়ে শুক্রবার সকাল থেকে জমিতে কাজ করে সাড়ে ১০ টার দিকে  বাসায় আসেন খাওয়া-দাওয়া করতে। এরই মধ্যে  প্রতিপক্ষ হায়দার আলী গং জমিতে অনাধিকার প্রবেশ করে তাদের রোপনকৃত কলাগাছ উপড়ে জমির পার্শবর্তী  গর্তে ফেলে দেন। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্হলে পৌঁছায়ে সেখানে থানা পুলিশের উপস্হিতি দেখতে পান এবং  বিষয়টি তিনি ডুমুরিয়া থানা অফিসার ইনচার্জকে মোবাইল ফোনে অবহিত করেন  বলে তিনি জনান।
 আব্দুল কুদ্দুস শেখ আরো জানান, ওই জমিতে কাজ করতে গেলেই প্রতিপক্ষরা নানাবিধ হুমকি-ধামকি এবং থানা পুলিশ ডেকে নিয়ে বারং বার তাদের বাঁধা সৃষ্টি এবং হয়রানী করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।
এ প্রসঙ্গে ডুমুরিয়া থানা অফিসার ইন চার্জ মোঃ ওবাইদুর রহমান বলেন, ৯৯৯ এ ফোন করার কারণে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়।
তবে পুলিশের উপস্থিতিতে কোন গাছ তুলে ফেলা হয়নি। গাছ যদি তুলে ফেলে থাকে তাহলে সেটি থানা থেকে পুলিশ যাওয়ার পূর্বে তোলা হয়েছে। এ সংক্রান্ত কোন ঘটনা ঘটলে থানায় অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 তিনি আরো জানান, জমির বিষয়টি নিয়ে আব্দুল কুদ্দুস শেখ আদালতের আদেশের একটি কপি ইতোপূর্বে থানায় জমা দিয়েছেন অপরদিকে হায়দার গোলদার বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট একটি দরখাস্ত দাখিল করেছেন যার কপিও থানাকে দিয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu