বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
জেলা প্রশাসকের সাথে সাতক্ষীরা পানি বিশুদ্ধকরণ সরবরাহকারী সমিতির মতবিনিময় সুন্দরবনের মাছ কাকঁড়ার উপর নির্ভরশীল উপকূলীয় এলাকার কয়েক হাজার জেলে বাওয়ালী রূপসায় শেখ কামালের ৭২ তম জন্ম বার্ষিকী পালিত সুন্দরগঞ্জে দিন-দুপুরে বাড়ি চুরির অপরাধে যুবক জেলহাজতে পাইকগাছায় বেপরোয়া মোটরবাইক কেড়ে নিল বৃদ্ধ আবুল কাশেমের প্রান পাইকগাছার চাঁদখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ইয়াসির আরাফাতের বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মুত্যু ! সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন রূপসায় ভ্রাম্যমান টিকা নিবন্ধন কার্যক্রমের উ‌দ্বোধন রূপসায় ব্যাচ-৯৫ এর অক্সিজেন ব্যাংক ও ব্লাড ব্যাংকের শুভ উদ্বোধন  শ্যামনগরে ইউনিয়ন পর্যায়ে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদান বিষয়ে মতবিনিময় সভা ।

গাইবান্ধায় নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধিতে নৌকা কারিগরদের ব্যস্ততা বেড়েছে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১
  • ১০৯ জন সংবাদটি পড়েছেন

 গাইবান্ধা থেকে সফিকুল ইসলাম রাজাঃ শুরু হয়েছে বর্ষাকাল। উত্তরাঞ্চলের জেলা গাইবান্ধায় প্রতিবছরের ন্যায় এসময় নদ-নদীতে পানি বেড়ে যাওয়া এবং বিভিন্ন স্থানে বন্যা দেখা দেওয়ায় নৌকার চাহিদা বেড়ে যায় কয়েক গুণ। বর্ষা মৌসুম এলেই ব্যস্ত সময় পার করেন এখানকার নৌকা তৈরির কারিগররা। নতুন নৌকা তৈরির পাশাপাশি চলে পুরনো নৌকা মেরামতের কাজও।

গাইবান্ধা সদরের গিদারী ইউনিয়নে পাঁচকুড়া গ্রামে এখন নৌকা বানানোর ধুম লেগে গেছে। বেশ খানিকটা দূর থেকেই কানে ভেসে আসে হাতুড়ি-বাটালের শব্দ। সেখানে গিয়ে দেখা গেল, দলবেঁধে কাজ করছেন নৌকার কারিগররা।প্রতিবছর বর্ষাকালে ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, যমুনা, করতোয়া ও ঘাঘট নদী তীরবর্তী গাইবান্ধা জেলার অন্তত পাঁচটি উপজেলার অধিকাংশ জনপদ পানিতে থৈ থৈ করে। ডুবে যায় রাস্তাঘাট, নদী-নালা, খাল-বিল। যাতায়াত করতে হয় নৌকায় । মৎস্যজীবীরা মাছ ধরার কাজে ব্যবহার করে ছোট-বড় নৌকা। তাই বর্ষা মৌসুম আসলে এখানে বেড়ে যায় নৌকার কদর।

গাইবান্ধা সদর উপজেলা ছাড়াও সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় নৌকা তৈরিতে ব্যস্ততা বেড়েছে কারিগরদের। এসব এলাকাসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকার ক্রেতাদের চাহিদামাফিক অর্ডার নেন কারিগরেরা। এখন সেসব চাহিদা মেটাতে নৌকা তৈরিতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। বর্ষার ভরা মৌসুম হওয়ায় দম ফেলারও ফুসরত নেই তাদের।বর্তমানে কাঠসহ নৌকা তৈরির উপকরণের দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে নৌকা তৈরিতে খরচও বেড়েছে। তবে সে তুলনায় ক্রেতাদের কাছে নৌকার দাম বাড়েনি বলে জানান কারিগররা।

তারা জানান, ৯ হাত লম্বা নৌকা ৩-৪ হাজার টাকা এবং ১২ হাত নৌকা ৫-৬ হাজার টাকায় বিক্রি করছেন তারা। গাইবান্ধা সদরসহ আশপাশের এলাকা থেকেও মানুষ এসে তাদের কাছ থেকে নৌকা তৈরি করে নিয়ে যায়। সদর উপজেলার পাঁচকুড়া গ্রামে নৌকা তৈরির কারিগর বলেন, নিজস্ব পুজি না থাকার কারণে দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অগ্রীম টাকা নিয়ে অনেক কারিগরকেই উপকরণ কিনতে হয়। যে কারণে তারা তেমন দাম পায় না। প্রতিবছর বর্ষা আসার মাসখানেক আগে থেকেই তারা নৌকা তৈরির কাজ শুরু করেন। এটি তাদের বাপ-দাদার পেশা। বর্ষায় নৌকা আর বছরের বাকি সময়টা বাসাবাড়ির আসবাবপত্র, দরজা-জানালা তৈরি করে চলে তাদের সংসার।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu