শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৫০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম

তালায় প্রতিপক্ষের বসতবাড়িতে হামলা করে  বাড়িঘর ভাঙচুর ও স্বার্ণালঙ্কর লুটের অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট টাইম রবিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫৬ জন সংবাদটি পড়েছেন
রাকিবুল হাসান সাতক্ষীরাঃ সাতক্ষীরা জেলার কলোরোয়া উপজেলার তালার জেঠুয়া গ্রামে প্রতিপক্ষের বসতবাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সন্ত্রাসীরা এসময় বসতবাড়িতে থাকা স্বার্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে গেছে। শনিবার (৪ আগষ্ট) সকালে তালার জালালপুর ইউনিয়নের জেঠুয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
সরেজমিনে দেখাযায়, জেঠুয়া গ্রামের মৃত ইনছাপ মোড়লের ছেলে আতিয়ার রহমান (৫৫) ও মনিরুজ্জামান (৭০)এর বসতবাড়িতে সন্ত্রাসীরা হামলা করে সরকারী রাস্তার পাশে ৪ টি পাঁকা ঘর ভেঙে গুড়িয়ে দিয়েছে। এসময় সন্ত্রাসীরা ঘরের পাঁকা দেয়াল, দরজা ও জানালা লোহার রড, কুড়াল, হাতুড়ী দিয়ে ভেঙে মাটির সাথে গুড়িয়ে দিয়েছে। ঘরের অস্তিত্ব বলতে ভিটা টুকু ছাড়া কিছুই অবশিষ্ট নেই।
জানা যায়, আতিয়ার ও মনিরুজ্জামান পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া জমিতে পাঁকা বাড়ি বানিয়ে দীর্ঘদিন বসবাস করে আসছে। তাদের বাড়ির পাশদিয়ে অন্য শরিকদের যাতায়াতের সরকারী ইটের রাস্তা। এই রাস্তাদিয়ে ওই পাড়ার লোকজন চলাচল করে।
ওই গ্রামের আরিচ মোড়ল (৪০), সোহেব আক্তার (১৫), নাদিরা খাতুন (৩৫), মজ্ঞিলা খাতুন (২২), শাহানারা বেগম (৫০), ইয়াছিন আলী (৫০), মজিদ মোড়ল (৬০)সহ এলাকার অনেকেই জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ রাস্তার সীমানা নিয়ে প্রতিপক্ষ জাকাত গংদের সাথে হামলা মামলা চলছিল। এবিষয়কে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষ প্রায়ই ঝগড়া বিবাদে লিপ্ত থাকত। অনেক শালিশ মিমাংশায় নিষ্পত্তি না হলে থানা ও আদালতে মামলা উভয় পক্ষের মামলা চলতে থাকে।
তারা বলেন, আতিয়ার ও মনিরুজ্জামান তাদের জায়গায় পাঁকা ঘর তৈরী করতে গেলে জাকাতগংরা বাঁধা দেয়। এসময় উভয় পক্ষ তালা থানায় লিখিত অভিযোগ করে।
শুক্রবার (৩ আগষ্ট) বিকালে উভয় পক্ষকে নিয়ে তালা থানার এসআই হুমায়ুন কবীরের নেত্র্বে মিমাংশায় বসেন। সেখানে ঘর বাঁধা ও থানা পুলিশের উপস্থিতিতে আমিন দিয়ে মেপে সীমানা নির্ধারণ করার সিদ্ধান্ত হয়।
সকালে ঘরের কাজ শুরু করলে থানার সিদ্ধান্ত না মেনে জাকাতগংরা বাঁধা দেয়। উভয় পক্ষ আবারও থানা পুলিশের স্মরনাপন্ন হয়। এসময় তালা থানার এসআই শামিম হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন এবং উভয় পক্ষের ২ জন করে থানায় আসতে বলেন।
পুলিশ ঘটনাস্থল ত্যাগ করার সাথে সাথে প্রতিপক্ষ ওই গ্রামের সিরাজ মোড়লের ছেলে জাকাত মোড়ল (৪৫), রাজ্জাক মোড়ল (৫৫), লিয়াকত মোড়ল (৫০), আকবর মোড়ল (৪০), সাদ্দাম মোড়ল (৩৫), ফুলমিয়ার ছেলে বারিক মোড়ল (৫৫), সাজ্জাত মোড়লের ছেলে মোক্তার মোড়ল (২৫), ছাত্তার মোড়ল (৪৫), সবুর মোড়লের ছেলে সাহেদ মোড়ল (২৫), রাশেদ মোড়ল (২০), মৃত মোহাম্মদ মোড়লের ছেলে আব্দুর রহমান মোড়ল (৪৫), রহিম বক্স গাজীর ছেলে সাইদ গাজী (৫০), মহিদ গাজী ( ৩৫), সাইদ গাজীর ছেলে আব্দুল্লাহ (২৫), লিয়াকত মোড়লের ছেলে জহিরুল (২০) ও বক্কর মোড়লের ছেলে হাসান (২৫)’সহ ২৫/২৬ জন লোক সংঘবদ্ধ হয়ে বাড়ির দু’পাশের রাস্তা বন্ধ করে দেশীয় অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বসতবাড়ি ভাংচুর শুরু করে। তাদের অস্ত্রের ভয়ে এলাকার কোনো মানুষ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেনি বলে তারা জানায়।
এবিষয়ে অভিযুক্ত  জাকাত মোড়ল জানান, তারা থানা পুলিশের কথা না মেনে জোর পূর্বক ঘর বাঁধার চেষ্টা করলে আমরা বাঁধা দেই। আমরা কাহারো ঘর ভাঙচুর করিনি তবে সাবল, লোহার রড, কুড়াল দিয়ে পাঁচালি ভেঙে দিয়েছি।
সোনার গহনা ও টাকা লুটের কথা অস্বীকার করেন জাকাত মোড়ল।
এবিষয়ে তালা থানা ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, জেঠুয়ার বসতঘর ভাঙচুরের ঘটনায় ১৬ জনকে আসামী করে মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা রেকর্ডের পরে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন : ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরো সংবাদ

আমাদের রূপসী ইউটিউব চ্যানেল

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: রবিউল ইসলাম তোতা

প্রধান কার্য্যালয় : রামনগর পূর্ব রূপসা, রূপসা, খুলনা

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Hwowlljksf788wf-Iu